Smoking: সিগারেটের ধোঁয়ায় হারাতে পারেন দৃষ্টিশক্তি! চোখ ভাল রাখার সেরা উপায় কী?

By | June 1, 2022


Eye Health: গর্ভাবস্থায় তামাক সেবনে আগত শিশুর রেরেটিনোপ্যাথির ঝুঁকি তৈরি করতে পারে। এই অসুখের কারণে শিশুর রেটিনার রক্তনালীগুলি সম্পূর্ণরূপে বিকশিত হয় না।

ধূমপানের (Smoking) কারণ শ্বাসযন্ত্রের রোগ, কার্ডিওভাসকুলার রোগ এবং ক্যান্সারের মতো গুরুতর অবস্থা দেখা দিতে পারে, এমনটাই জানা সকলের। বিশেষজ্ঞদের মতে, ধূমপানের কারণে চোখেরও (Eye Health) সমান ক্ষতি হতে পারে। বিশ্বে মৃত্যুহারের পিছনে ধূমপান একটি প্রধান অপ্রতিরোধ্য কারণ। তামাক সেবনের ফলে বিশ্বব্যাপী ৪ মিলিয়নেরও বেশি মৃত্যু হয়। এ থেকে অনুমান করা যায় যে তাদের মধ্যে প্রায় ৬ কোটি মানুষ শুধু প্যাসিভ স্মোকার (Passive Smoker)। সিগারেটের ধোঁয়া শরীরে রক্তে প্রবাহের মাধ্যমে বিষাক্ত পদার্থ চোখ-সহ বিভিন্ন অঙ্গকে প্রবাহিত হয়। ধূমপানের কারণে চোখে ছানি, গ্লুকোমা, বয়স-সম্পর্কিত ম্যাকুলার ডিজেনারেশন ও ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথির মত গুরুতর চোখের অবস্থার বিকাশের সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয়। সময়মত যদি সতর্ক না হয়ে চিকিত্‍সা শুরু করা যায়, তাহলে ধীরে ধীরে দৃষ্টিশক্তি হ্রাস পেতে পারে। শুধু তাই নয়, সিগারেটের ধোঁয়া চোখের নীচে ফোলাভাব এবং চোখের পাতার ব্যাধি, জ্বালা সৃষ্টি করতে পারে।

ধূমপান থেকে চোখের সমস্যা হওয়ার সম্ভাবনা কাদের বেশি

গর্ভাবস্থায় তামাক সেবনে আগত শিশুর রেরেটিনোপ্যাথির ঝুঁকি তৈরি করতে পারে। এই অসুখের কারণে শিশুর রেটিনার রক্তনালীগুলি সম্পূর্ণরূপে বিকশিত হয় না। এমনকি অনেক সময় অন্ধত্বের কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

– ডায়াবেটিকরা যদি তামাক সেবন করে, তাদের ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথির মতো অবস্থার বিকাশের ঝুঁকি প্রবল হয়।

– একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে শিশুরা খুব কম বয়সেই ধূমপানের কারণে চোখের সমস্যা তৈরি করতে পারে। সিগারেটের ধোঁয়া কোরয়েড পাতলা হয়ে চোখের স্বাস্থ্যকে ঝুঁকিতে ফেলতে পারে।

মন অবস্থায় চোখকে রক্ষা করবেন কীভাবে?

চোখের সমস্যার সমাধানের জন্য প্রথমেই দরকার ধূমপান ত্যাগ করা। ধূমপান ত্যাগ করা ছাড়াও আরও কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় রয়েছে, যা অনুসরণ করলে আখেরে আপনিই লাভবান হবেন…

– সূর্যের ক্ষতিকর UV রশ্মি থেকে চোখকে রক্ষা করার জন্য বাইরে বের হওয়ার সময় চশমা বা সানগ্লাস পরুন।

– ঘন ঘন চোখের পলক ফেলুন যাতে এটি শুকিয়ে না যায়।

– চোখের সুস্থতার জন্য ভাল স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করুন।

– রক্তের গ্লুকোজ, রক্তচাপ এবং কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে রাখুন।

– চোখকে বিশ্রাম দিন। বিশেষ করে যাঁরা বেশিরভাগ সময় ধরে ল্যাপটপ বা কম্পিউটারের স্ক্রিনে কাজ করে, পড়াশোনা করেন, তাদের চোখের বিষয়ে বিশেষ নজর দিতে হবে।

– চক্ষু বিশেষজ্ঞের কাছ থেকে নিয়মিত চেক-আপের জন্য যেতে পারেন।

– ধূমপান ছেড়ে দিতে কখনই দেরি হয় না। এটি সর্বদা মনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ যে ধূমপান ত্যাগ করা শুধুমাত্র সামগ্রিক স্বাস্থ্য বজায় রাখতে সাহায্য করতে পারে না বরং চোখের স্বাস্থ্যের জন্যও ভাল।

এই খবরটিও পড়ুন



Disclaimer: এই প্রতিবেদনটি শুধুমাত্র তথ্যের জন্য, কোনও ওষুধ বা চিকিৎসা সংক্রান্ত নয়। বিস্তারিত তথ্যের জন্য আপনার চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ করুন।



Source link