PPE কিট নিয়েও দুর্নীতি! বিস্ফোরক অভিযোগ অসমের মুখ্যমন্ত্রীর স্ত্রী’র বিরুদ্ধে, সরব তৃণমূল

By | June 3, 2022


Published by: Subhajit Mandal |    Posted: June 3, 2022 8:41 pm|    Updated: June 3, 2022 8:41 pm

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: অসমের ডবল ইঞ্জিন সরকারে বড়সড় দুর্নীতি। সে রাজ্যের মুখ‌্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মার (Himanta Biswa Sarma) ঘনিষ্ঠ এক ব‌্যবসায়ীকে আকর্ষণীয় শর্তে পিপিই কিটে বরাত পাইয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে। তথ্যের অধিকার আইনে একটি আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে রাজ‌্য সরকার এই অভিযোগ কার্যত মেনেই নিয়েছে। অসমের বিজেপি সরকারের এই ‘দুর্নীতি’ নিয়ে সরব তৃণমূল কংগ্রেস। শুক্রবার দলের টুইটার হ‌্যান্ডেলে লেখা হয়েছে, ‘অসমের মানুষ যখন অতিমারীতে ভুগছিল, তখন মুখ‌্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মার আত্মীয়-বন্ধুরা পকেট ভরছিল। আর কত নিচে নামবে বিজেপি? মানুষের জীবনের সঙ্গে খেলা এবং তাদের দুর্দশার মধ্যে ফেলাই কি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির (Narendra Modi) আসল অ‌্যাজেন্ডা?’

করোনা অতিমারীর সময় অসমে সর্বানন্দ সোনওয়াল সরকারের স্বাস্থ‌্যমন্ত্রী ছিলেন হিমন্ত বিশ্বশর্মা। সেই সময় অতিমারী মোকাবিলায় প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কেনার বরাত দেয় রাজ্যের স্বাস্থ‌্য ও পরিবার কল‌্যাণ মন্ত্রক। সেই সব বরাত যাঁরা পেয়েছেন, তাঁদের মধ্যে হিমন্ত বিশ্বশর্মার স্ত্রীর নামও আছে। একটি সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে এমনটাই দাবি করা হয়েছে। সংবাদসংস্থা সূত্রের খবর, সরকারি বরাত হস্তগত করতে ঘনশ‌্যাম ধানুয়া নামে এক ব‌্যবসায়ীর সংস্থাকে অসম সরকারের পক্ষ থেকে বিশেষ সুবিধা পাইয়ে দেওয়া হয়েছে। এই ধানুকা মুখ‌্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মার স্ত্রী রিনিকি ভুঁইয়া শর্মার (Riniki bhuyan Sarma) সংস্থা জেসিবি ইন্ডাস্ট্রিজের অন‌্যতম অংশীদার। শুধু তাই নয়, শর্মা পরিবারের অত‌্যন্ত কাছের লোক বলেই তিনি অসমের রাজনৈতিক মহলে পরিচিত।

[আরও পড়ুন: ইপিএফে সুদ কমানোর প্রস্তাবে সায় কেন্দ্রের, চার দশকে সর্বনিম্ন হল সুদের হার]

এর আগে ‘দ‌্য ক্রস কারেন্ট’ নামে একটি সামাজিক সংগঠনের RTI-এর জবাবে অসমের ন‌্যাশনাল হেলথ মিশন জানিয়েছিল, ২০২০ সালের ২৫ মার্চ দেশজুড়ে করোনা লকডাউন (Lockdown) ঘোষণার পর পিপিই সরবরাহের জন‌্য সরকারের বেশিরভাগ বরাত পেয়েছে রাজীব বোরা নামে গুয়াহাটির এক ব‌্যবসায়ীর সংস্থা এজিল অ‌্যাসোসিয়েটস। এই সংস্থা ২০২০’র ১০ এপ্রিল ন‌্যাশনাল হেলথ মিশনকে (National Health Mission) ১০ হাজার পিপিই কিট সরবরাহ করে। যার একেকটির দাম ছিল ২২০০ টাকা। একইভাবে সেই লকডাউনের সময় হিমন্ত বিশ্বশর্মার অধীনে থাকা স্বাস্থ‌্যমন্ত্রক তাঁর স্ত্রীর সংস্থা জেসিবি ইন্ডাস্ট্রিজ এবং ঘনশ‌্যাম ধানুকার সংস্থা মেডিটাইম হেলথকেয়ারকে জরুরি ভিত্তিতে ৯০০ টাকা দরে পিপিই কিট সরবরাহের বরাত দেয়। অবশ‌্য, ওই বছর ১৮ মার্চ (লকডাউন ঘোষণার আগে) ন‌্যাশনাল হেলথ মিশন অন‌্য একটি সংস্থার কাছ থেকে ৬০০ টাকা দরে পিপিই কিট কিনেছিল। দুর্নীতির শিকড় গ্রথিত রয়েছে অনেক গভীরে। রাজীব বোরার অরেক সংস্থা ডিজিটেক মিডিয়া অ‌্যান্ড এন্টারটেইনমেন্ট প্রাইভেট লিমিটেড। ২০০৯ পর্যন্ত রিনিকি ভুঁইঞা শর্মা এই সংস্থার অন‌্যতম প্রতিষ্ঠাতা ও কো-ডিরেক্টর ছিলেন। এরপর কো-ডিরেক্টর হন রাজীব বোরা।

[আরও পড়ুন: By-Election Results: উত্তরাখণ্ডে মুখ্যমন্ত্রী ধামির মসনদের কাঁটা সরল, কেরলে ধাক্কা বামেদের]

খোদ মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে স্বজনপোষণ ও দুর্নীতির অভিযোগ ওঠায় রীতিমতো চাপে অসম সরকার। আক্রমণের সুর সবচেয়ে বেশি চড়িয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। তৃণমূলের বক্তব্য, মহামারীর সুযোগ নিয়ে নিজের ঘনিষ্ঠদের পকেট ভরেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ

নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে





Source link