Ankita Adhikary: কলেজ সার্ভিস কমিশনেও নাম উঠেছে পরেশ-কন্যার, ইন্টারভিউতেও ডাক অঙ্কিতাকে

By | May 27, 2022


প্যানেলে নাম অঙ্কিতার

Ankita Adhikary: স্কুলে শিক্ষকতা করতেন অঙ্কিতা। কিন্তু, সেই চাকরির ক্ষেত্রে বেনিয়ম হয়েছে বলে অভিযোগ ওঠে। এরপরই আদালতের নির্দেশে চাকরি হারিয়েছেন মন্ত্রী-কন্যা।

কলকাতা: মন্ত্রীর মেয়েকে বেআইনিভাবে চাকরি পাইয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে স্কুল সার্ভিস কমিশনের বিরুদ্ধে। পরেশ অধিকারীর মেয়ে অঙ্কিতা কী ভাবে চাকরি পেল, তা জানতে পরেশের পাশাপাশি তৎকালীন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্য়ায়কেও জেরা করছে সিবিআই। এবার কলেজ সার্ভিস কমিশনের তালিকাতেও নাম উঠেছে অঙ্কিতার। তবে এ ক্ষেত্রে যোগ্য বলেই এই সুযোগ পেয়েছেন বলে দাবি কলেজ সার্ভিস কমিশনের।

দুর্নীতির অভিযোগ ওঠায় স্কুলের চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে অঙ্কিতাকে। আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী, আর স্কুলে প্রবেশ করতে পারবেন না অঙ্কিতা। শুধু তাই নয়, ২০১৮ সাল থেকে এত দিন পর্যন্ত যা বেতন পেয়েছেন, সেই সব টাকাও ফেরাতে হবে অঙ্কিতাকে। আর এবার কলেজ সার্ভিস কমিশনে তাঁর নাম প্রকাশ্যে আসায় ফের জল্পনা শুরু হয়েছে বিভিন্ন মহলে। কলেজ সার্ভিস কমিশন সূত্রে নিশ্চিত করা হয়েছে, তালিকায় যাঁর নাম রয়েছে, তিনিই পরেশ অধিকারীর মেয়ে, মেখলিগঞ্জের বাসিন্দা অঙ্কিতা। তবে এ ক্ষেত্রে কোনও দুর্নীতি প্রশ্ন নেই বলে সাফ জানিয়েছে কলেজ সার্ভিস কমিশন।

মনে করা হচ্ছে, শিক্ষকতা হারালেও অধ্যাপনায় আসতেই পারেন অঙ্কিতা। জানা গিয়েছে, ২৬ এপ্রিল ইন্টারভিউয়ের ডাকও পেয়েছিলেন পরেশ কন্যা। কলেজ সার্ভিস কমিশন সূত্রে দাবি করা হয়েছে, অঙ্কিতা যোগ্য আবেদনকারী, তাই তাঁকে ডাকা হয়েছে। কমিশন স্পষ্ট জানিয়েছে, এ ক্ষেত্রে কোনও জল্পনার কারণ নেই, কারণ এমন কোনও নির্দেশ নেই যে অঙ্কিতাকে ডাকা যাবে না। মেরিট থাকলে কেন ডাকা হবে না? সেই প্রশ্নই তুলছে কমিশন। আরও উল্লেখ করা হয়েছে, আলফাবোটিকালি অর্থাৎ নামের প্রথম অক্ষর যেভাবে এসেছে সে ভাবেই ডাকা হয়েছে। কলেজ সার্ভিস কমিশনের কাছে সব আবেদনকারী সমান বলেই দাবি করছেন কমিশনের আধিকারিকরা।

উল্লেখ্য, পার্সোনালিটি টেস্ট বা ইন্টারভিউই না দিয়েও কী ভাবে অঙ্কিতার নাম প্যানেলে এল, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছিলেন এক চাকরি প্রার্থী। বিষয়টি নজরে আসার পরই হাইকোর্ট কড়া নির্দেশ দিয়েছে। অঙ্কিতাকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বেতনের সব টাকা অঙ্কিতাকে দুই কিস্তিতে ফেরত দেওয়ারও নির্দেশ দিয়েছে আদালত। এই নিয়ে অঙ্কিতা যে স্কুলে শিক্ষকতা করতেন, সেই স্কুলের পরিচালন সমিতি বৈঠকও করেছে ইতিমধ্যেই। অন্যদিকে, মেয়ের চাকরি কী ভাবে হল, কার কাছে সুপারিশ করা হয়েছিল, এই সব প্রশ্ন করতে তিন দিন জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে অঙ্কিতার বাবা তথা রাজ্যের শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী পরেশ অধিকারীকে। এ ছাড়া আর এক মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়কেও পরেশ- কন্যার বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন তদন্তকারীরা।



Source link