ভাইরাল বজরং কর্মীদের আগ্নেয়াস্ত্র প্রশিক্ষণের ছবি! কর্ণাটকে তুঙ্গে বিতর্ক

By | May 16, 2022


সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বজরং দলের (Bajrang Dal) কর্মীরা আগ্নেয়াস্ত্রের প্রশিক্ষণ (Firearms Training) নিচ্ছেন। সম্প্রতি এমন ছবি ও ভিডিও ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায় (Social Media)। যা নিয়ে তুমুল বিতর্ক শুরু হয়েছে কর্ণাটকে (Karnataka)। ওই অস্ত্র এয়ার গান হলেও প্রশ্ন উঠছে, গেরুয়া শিবিরের দলীয় কর্মীদের হাতে বন্দুক তুলে দেওয়া হচ্ছে কেন? অস্ত্র প্রশিক্ষণের কারণ কী? ওই এয়ার গানগুলির লাইসেন্স আছে কিনা, তা নিয়েই প্রশ্ন তুলেছে কংগ্রেস (Congress) ও এসডিপিআইয়ের (SDPI) মতো দল।

সূত্রের খবর, বিতর্কিত অনুশীলন শিবিরটির নাম দেওয়া হয় ‘সৌর্য পরীক্ষা পর্ব’। যেটি হয় কর্ণাটকের কোডাগু জেলার পোন্নামপেট এলাকার সাই সংকর এডুকেশনাল ইনস্টিটিউটে। ৫ মে থেকে ১১ মে অবধি চলে শিবির। জানা গিয়েছে, মোট ৪০০ বজরং কর্মী আগ্নেয়াস্ত্রের প্রশিক্ষণ নেন। এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পর রাজ্যের সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি শিবিরে অংশ নেওয়া একাধিক ব্যক্তির বিরুদ্ধে এফআইআর (FIR) দায়ের করেছে। ওই এফআইআরে কোডাগুর বিজেপি (BJP) এমএলএর বিরুদ্ধে অস্ত্র প্রশিক্ষণে মদত দেওয়ার অভিযোগ আনা হয়েছে।

[আরও পড়ুন: বারাণসীতে বঙ্গভবন বানাতে চায় রাজ্য, যোগী প্রশাসনের কাছে নিয়মকানুন জানতে চাইল নবান্ন]

যদিও বজরং দলের সাফাই, শিবিরে অংশ নেওয়া ব্যক্তিদের আত্মরক্ষার প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছিল। প্রশিক্ষণে দেওয়া হলেও কাউকে বন্দুক দেওয়া হয়নি কাউকে। এদিকে যে স্কুল প্রাঙ্গনে প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছিল, সেই স্কুল কর্তৃপক্ষের দাবি, বহু বছর ধরে আমাদের এখানে বজরং দলের প্রশিক্ষণ হয় কিন্তু অস্ত্র প্রশিক্ষণের কথা জানা নেই তাদেরও। এই বিষয়ে কংগ্রেস বিধায়ক দীনেশ গুন্ডু রাও টুইট করেন। সেখানে তিনি লেখেন, “কেন বজরং দলের কর্মীদের আগ্নেয়াস্ত্রের প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে? লাইসেন্স ছাড়া আগ্নেয়াঅস্ত্র রাখা অপরাধ নয় কি?” তিনি অভিযোগ করেন, “এই ধরনের খারাপ কাজকে বিজেপি নেতারা প্রকাশ্যে সমর্থন করছেন।” 

[আরও পড়ুন: বন্ধ হোক ‘দ্য কাশ্মীর ফাইলসে’র মতো ছবি, পণ্ডিতদের উপর হামলা নিয়ে তোপ ফারুক আবদুল্লার]

আরেক কংগ্রেস বিধায়ক রিজওয়ান আরশাদও টুইট করেছেন। লেখেন, “যে বয়সে বেশিরভাগ যুবক স্বপ্ন পূরণের জন্য পরিশ্রম করেন। কেরলে বজরং দল ওই যুবকদের ধর্মের নামে অস্ত্র হাতে তুলে নেওয়ার প্রশিক্ষণ দিচ্ছে। তাঁদের জীবন ধ্বংস করছে। যে কোনও মূল্যে এই কাজ বন্ধ হওয়া দরকার”।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ

নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে





Source link