পুরুলিয়ার আদ্রায় শুটআউট, দুষ্কৃতীদের এলোপাথাড়ি গুলিতে জখম ২

By | May 16, 2022


Published by: Tiyasha Sarkar |    Posted: May 16, 2022 5:35 pm|    Updated: May 16, 2022 5:38 pm

সুমিত বিশ্বাস, পুরুলিয়া: বারাকপুরের কয়েকঘণ্টার ব্যবধানে পুরুলিয়ার (Purulia) রেল শহর আদ্রায় শুটআউট। আদ্রা রেল ইয়ার্ডে দুষ্কৃতীদের গুলিতে জখম হলেন দুই শ্রমিক। ঘটনাকে কেন্দ্র করে তীব্র উত্তেজনা ছড়িয়েছে এলাকায়। ঘটনাত তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

দক্ষিণ পূর্ব রেলের আদ্রা ডিভিশনের আদ্রা রেল ইয়ার্ডে সবসময়ই পরিত্যক্ত রেলের কামরা রাখা থাকে। সেই কামরাগুলি কেটে বিক্রি করা হয়। তবে এর জন্য টেন্ডার হয়। এবার টেন্ডার পেয়েছেন রামেশ্বর সিং। বর্তমানে তার শ্রমিকেরা রেল ইয়ার্ডে কাজ করছিল। সোমবার সেখানে কাজ চলাকালীনই ঘটে হামলার ঘটনা। জানা গিয়েছে, এদিন বাইকে করে মোট ৪ জন যুবক ইয়ার্ডে যায়। সেখানে কর্মরত শ্রমিকদের কাছে আততায়ীরা প্রথমে রামেশ্বরের খোঁজ করেন।

[আরও পড়ুন: ডোমজুড়ে শুটআউটে সুপারি দিয়েছিল এক মহিলা! ধৃতকে জেরায় চাঞ্চল্যকর তথ্য পেল পুলিশ]

এরপরই শ্রমিকদের মোবাইল ও টাকা লুঠ করে দুষ্কৃতীরা। অভিযোগ, এরপর শ্রমিকদের হাতে রামেশ্বরকে দেওয়ার জন্য একটি চিঠি দেয় তারা। তারপর এলোপাথাড়ি গুলি চালাতে চালাতে এলাকা ছাড়ে দুষ্কৃতীরা। এই শুটআউটের ঘটনায় জখম হয়েছেন ২ শ্রমিক। তাঁদের নিয়ে যাওয়া হয়েছে হাসপাতালে। আদ্রা রেল পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে, “৯ রাউন্ড গুলি চলেছে। মোট চারজন আততায়ী বাইকে চেপে এসেছিল। দুষ্কৃতীরা একটি চিঠি দিয়ে গিয়েছে।”

উল্লেখ্য, রেলশহর আদ্রায় টেন্ডার নিয়ে ঝামেলা লেগেই থাকে। এর আগে এই অশান্তির জেরে খুনের ঘটনাও ঘটেছে। এই হামলার কারণও টেন্ডার বলেই প্রাথমিকভাবে অনুমান। রামেশ্বর টেন্ডার পাওয়ায় অন্য গোষ্ঠী এই হামলা চালিয়েছে বলেই মনে করা হচ্ছে। সোমবার দুপুরেই শুটআউটের ঘটনা ঘটেছে বাংলারই বারাকপুরে। বিরিয়ানির দোকান লক্ষ্য করে কয়েক রাউন্ড গুলি চালায় দুষ্কৃতীরা। জখম হন দুই জন। সেই ঘটনায় ইতিমধ্যেই এক অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তার কয়েকঘণ্টার মধ্যেই গুলি চলল পুরুলিয়ায়।

[আরও পড়ুন: ‘ভূতুড়ে ব্যবসায়ী’দের উপর রাশ টানতে পার্সেল ব্যবস্থায় ‘স্বচ্ছতা’ আনতে চলেছে রেল]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ

নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে





Source link