‘নিরাপদ’ জায়গায় বদলি, কাশ্মীরী পন্ডিতদের বাড়ির বাইরেও বসবে কড়া পাহারা

By | May 16, 2022


সুবিচারচেয়ে ধর্নায় বসেছেন কাশ্মীরী পন্ডিতরা। ছবি:PTI

Jammu Kashmir: জম্মু-কাশ্মীরের লেফটেন্যান্ট গভর্নর মনোজ সিনহা জানান, কাশ্মীরী পন্ডিত যারা সরকারি কর্মচারী, তাদের বাসস্থানগুলিতে নিরাপত্তা বাড়িয়ে দেওয়া হবে।

শ্রীনগর: ১৯৯০ সালে কাশ্মীরী পন্ডিত(Kashmiri Pandit)-দের রক্তে রাঙা হয়েছিল উপত্যকা। গত সপ্তাহে ফের সরকারি কর্মী রাহুল ভাটের হত্যার ঘটনায় ফের সেই ভয়ঙ্কর স্মৃতিই ফিরে এসেছে।  জঙ্গিদের গুলি থেকে বাঁচতে এবং রাহুল ভাটের হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে প্রায় ৩৫০-রও বেশি কাশ্মীরী পন্ডিত সরকারি চাকরি থেকে ইস্তফা দেন। গোটা ঘটনায় নড়েচড়ে বসেছে কেন্দ্র। রবিবার জম্মু-কাশ্মীরের (Jammu Kashmir) লেফটেন্যান্ট গভর্নর মনোজ সিনহা(Manoj Sinha)-র সঙ্গে দেখা করেন গুপকর ও বিজেপির প্রতিনিধি দল। তাদের সঙ্গে বৈঠক করার পর গভর্নর জানান, জম্মু ও কাশ্মীরে যে সমস্ত কাশ্মীরী পন্ডিতরা বসবাস করেন, তাদের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হবে। সরকারি কর্মচারীদের নিরাপদ ও সুরক্ষিত জেলা ও তহশিলে স্থানান্তরিত করা হবে।

জম্মু-কাশ্মীরের লেফটেন্যান্ট গভর্নর মনোজ সিনহা জানান, কাশ্মীরী পন্ডিত যারা সরকারি কর্মচারী, তাদের বাসস্থানগুলিতে নিরাপত্তা বাড়িয়ে দেওয়া হবে। একইসঙ্গে গত সপ্তাহে রাহুল ভাটের হত্যা কাণ্ডের প্রতিবাদ মিছিলে যে কাঁদানে গ্যাস ব্যবহার করা হচ্ছিল, তার তদন্তের নির্দেশও দেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যেই রাহুল ভাটের মৃত্যুর তদন্তের জন্য বিশেষ তদন্তকারী দল বা সিট গঠন করা হয়েছে।

সংবাদসংস্থা এএনআই-কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, “গোটা ঘটনাটি খতিয়ে দেখার জন্য আমরা সিট গঠন করেছি। পিএম প্যাকেজে যে সমস্ত কাশ্মীরী পন্ডিতরা কাজ করেন, তারা অভিযোগ জানিয়েছেন যে পুলিশ তাদের উপরে শক্তি প্রয়োগ করেছিল। সিট এই বিষয়টিও খতিয়ে দেখবে।”

স্থানান্তরিত করার সিদ্ধান্ত প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “আগামী সাতদিনের মধ্যে সুরক্ষিত জায়গায় (জেলা ও তহশিল) বদলির ব্যবস্থা করা হবে। ঘটনাস্থলে আমার সচিবের কাছে যে সমস্ত অভিযোগ জানানো হয়েছে, তা খতিয়ে দেখা হবে। আমরা কাশ্মীরী পন্ডিতদের পাশে রয়েছি এবং তাদের কষ্ট বুঝতে পারছি। ওনারা যেখানে থাকেন, সেখানে নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হবে।”

কাশ্মীরী পন্ডিতদের হত্যা প্রসঙ্গে গভর্নর জানান, উপত্যকার শান্তি ও শৃঙ্খলা বিঘ্নিত করতেই কাশ্মীরী পন্ডিতদের নিশানা বানানো হচ্ছে। তিনি বলেন, “এটা অত্য়ন্ত দুঃখজনক ঘটনা। কিছু সংখ্যক মানুষ শান্তি নষ্ট করার চেষ্টা করছেন। গোটা বিষয়টি প্রশাসন যথেষ্ট গুরুত্ব দিয়ে ও সংবেদনশীলতার সঙ্গে বিচার করে দেখছে। সরকারি কর্মীদের নিরাপত্তার বিষয় নিয়ে প্রশাসনের সঙ্গে কথা বলেছি। গোটা রাজ্যে আতঙ্ক ও সন্ত্রাসের পরিবেশ তৈরি করা হচ্ছে।”

এই খবরটিও পড়ুন



স্থানীয় বাসিন্দা ও নেতাদের কাছে তিনি অনুরোধ জানান যে তারা যেন এলাকায় শান্তি বজায় রাখতে সাহায্য করেন।



Source link