‘গোটা বিশ্ব যখন দুই শিবিরে বিভক্ত, মানবতার বার্তা তুলে ধরছি আমরাই’, বিজেপির জন্মদিনে নমোর বার্তা

By | April 6, 2022


বিজেপির প্রতিষ্ঠা দিবসের অনুষ্ঠানে নরেন্দ্র মোদী। ছবি:PTI

নয়া দিল্লি: উপলক্ষ্য বিজেপির ৪২ তম প্রতিষ্ঠা দিবস, তবে সেই ভাষণেও দেশকেই অধিক গুরুত্ব দিলেন বিজেপি নেতা তথা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (Narendra Modi)। বুধবারই তিনি নয়া দিল্লিতে বিজেপির সদর দফতরে দাঁড়িয়ে একদিকে তিনি যেমন বিজেপির প্রতিষ্ঠা দিবসের (BJP Foundation Day) গুরুত্ব রয়েছে বলেন, তারই সঙ্গে দেশকে স্বাধীনতার ৭৫ তম বর্ষপূর্তিতে ‘আজাদি কা অমৃত মহোৎসব’ পালন করছেন, সেই কথাও উল্লেখ করেন। রাশিয়া-ইউক্রেনের যুদ্ধের প্রসঙ্গেও প্রধানমন্ত্রী মোদী জানান, যখন গোটা বিশ্ব দুটি শত্রু পক্ষে ভাগ হয়ে গিয়েছে, সেখানেই ভারত মানবতার বার্তাই তুলে ধরেছে।

এদিন, বিজেপির ৪২ তম প্রতিষ্ঠা দিবসের অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেন, “আজ যেখানে গোটা বিশ্ব দুটি শিবিরে ভাগ হয়ে গিয়েছে, সেখানেই ভারত কোনও ভয় বা চাপের মুখে না পড়ে, নিজেদের অবস্থানে কঠোরভাবে অবস্থান করছে। বর্তমানে ভারতকে এমন একটি দেশ হিসাবেই দেখা হয় যারা দৃঢ়ভাবে মানবতার কথা বলতে পারে।”

বিজেপির ৪২ তম প্রতিষ্ঠা দিবসের সঙ্গেই স্বাধীনতার ৭৫ তম বর্ষ, যাকে “আজাদি কা অমৃত মহোৎসব” নাম দেওয়া হয়েছে, তা মিলে গিয়েছে। এই প্রসঙ্গে নমো বলেন, “অনুপ্রেরণা নেওয়ার জন্য এটা একটা বড় সুযোগ। একইসঙ্গে, বিশ্বের পরিস্থিতিও দ্রুত পরিবর্তন হচ্ছে। এর জেরে ভারতের সামনে একাধিক নতুন সুযোগ আসতে চলেছে।”

সম্প্রতিই পাঁচ রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনের মধ্যে চার রাজ্যেই যে বিপুল জয়লাভ করেছে বিজেপি, তার জন্যও বিজেপি কর্মী ও সমর্থকদের সাধুবাদ জানান। দলের প্রতিটি কর্মীই দেশের স্বপ্নের অংশ এবং তারাই ওই স্বপ্নের প্রতিনিধি। তিনি বলেন, “দেশের দৃষ্টিভঙ্গি থেকেই দেখুন বা বিশ্বের, বিজেপির প্রতিটি সদস্যের দায়িত্বই ক্রমাগত বেড়েই চলেছে। বিজেপির প্রতিটি কর্মীই দেশের স্বপ্নের প্রতিনিধি। কাশ্মীর থেকে কন্যাকুমারী, কচ্ছ থেকে কোহিমা, সর্বত্রই বিজেপি ‘এক ভারত, শ্রেষ্ঠ ভারতে’র শপথকে মজবুত করে তুলছে।”

তিনি বলেন, “কয়েক সপ্তাহ আগেই বিজেপি চার রাজ্যে ডবল ইঞ্জিন সরকার নিয়ে ক্ষমতায় ফিরে এসেছে। তিন দশক পরে কোনও দলের সদস্য সংখ্যা রাজ্যসভায় ১০০-র গণ্ডি পার করেছে”। বিজেপি ক্ষমতায় আসার পর সাধারণ মানুষের জীবনযাত্রায় উন্নতি হয়েছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, “একটা সময় ছিল যখন মানুষ স্বীকার করে নিয়েছিলেন যে সরকারই হোক বা কোনও রাজনৈতিক দল, দেশের জন্য কেউ কিছু করবে না। কিন্তু আজ, দেশের প্রতিটি মানুষ গর্বের সঙ্গে বলতে পারেন যে আমাদের দেশ পরিবর্তিত হচ্ছে এবং অগ্রগতি হচ্ছে।”

আরও পড়ুন: COVID-19 in China: শহরজুড়ে লকডাউন, দোকানে খাবার নিয়ে কাড়াকাড়ি! রেকর্ড সংক্রমণ সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছে চিন



Source link